অস্ত্রোপচার শেষে ডিপজল সুস্থ রয়েছেন

|

সোমবার অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। পিঠের নিচে একটি সিস্ট হয়েছিল সেটা অস্ত্রোপচার করে অপসারণ করা হয়েছে। এখন তিনি সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছে ডিপজলের পারিবারিক সূত্র।

ডিপজল নিজেই মুঠোফোনে কথা এই প্রতিবেদকের সঙ্গে বললেন। জানালেন তিনি এখন সুস্থ আছেন। বলেন, আমি এখন সুস্থ আছি, আমার জন্য চিন্তার কোনো কারণ নেই আপাতত। আশা করছি দ্রুত সুস্থ হয়ে যাবো।

জানা যায়, বেশকিছুদিন ধরেই পিঠের নিচে ব্যাথা অনুভূত হচ্ছিল। পরে সেটা সিস্টের মতো দেখা যাওয়ায় শ্যামলির একটি হাসপাতালে ভর্তি হন। মঙ্গলবার তাঁকে অস্ত্রোপচারের জন্য নেওয়া হয়। বিকেল ৩ টা নাগাদ তিনি সুস্থতা অনুভব করেন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ডিপজল ভাইয়ের পিঠের নিচে একটা সিস্ট হয়েছিল, যেটা বেশ পেইনফুল ছিল। বাধ্য হয়েই তাকে হাসপাতালে নিতে হয়। আমি সবকিছু তদারকি করছিলাম। এখন তিনি আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন।

হাসপাতালে ডিপজল এমন খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা ডিপজলের খবর জানার জন্য উদগ্রীব হয়ে ওঠেন। ডিপজল বলেন, আমার অসুস্থতা নিয়ে চলচ্চিত্রের আপনজনদের উদ্বিগ্ন হওয়া স্বাভাবিক। আমি সবাইকে আশ্বস্থ করছি, আমি আল্লাহর রহমতে সুস্থ আছি। তাদের এবং আমার ভক্তদের ভালবাসা ও দোয়ায় ভাল আছি। যারা আমার খোঁজ খবর নিয়েছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা।

২০১৭ সালে হৃদরোগের সমস্যার কারণে দীর্ঘদিন সিঙ্গাপুরের চিকিৎসা করতে হয়েছিল ডিপজলকে। সেখানে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে তার হার্টে সফল বাইপাস অস্ত্রোপচার হয়। এরপর তিনি সুস্থ হয়ে উঠেন।

ডিপজল নেতিবাচক ও ইতিবাচক দুই ধরনের চরিত্রে অভিনয় করে ঢাকাই চলচ্চিত্রে উপহার দিয়েছেন বহু জনপ্রিয় সিনেমা। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজনাও করছেন তিনি। তাঁর ঝুলিতে রয়েছে- ‘চাচ্চু’, ‘দাদীমা’, ‘কোটি টাকার কাবিন’, ‘আম্মাজান’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমা।

মনোয়ার হোসেন ডিপজল (জন্ম: ১৫ জুন, ১৯৫৮), বাংলাদেশী অভিনেতা, প্রযোজক, লেখক, রাজনীতিবিদ এবং ব্যবসায়ী।[১][২][৩] তিনি ১৫ জুন, ১৯৫৮ সালে ঢাকার মিরপুরের বাগবারিতে জন্মগ্রহণ করেন। চলচ্চিত্র পরিচালক মনতাজুর রহমান আকবরের হাত ধরে চলচ্চিত্রে আগমন ঘটে তার।[৪] তিনি ফাহিম শুটিং স্পট, এশিয়া সিনেমা হল, পর্বত সিনেমা হল, জোবেদা ফিল্মস, পর্বত পিকচার্স-২, ডিপজল ফুড ইন্ডাস্ট্রিজের স্বত্বাধিকারী।[৫][৬][৭] তিনি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে সক্রিয়। প্রথমে খল চরিত্রে অভিনয় করলেও চাচ্চু চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি ভালো চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন।[৮][৯] ডিপজল বাংলাদেশ জাতিয়তাবাদী দলের হয়ে স্থানীয় ঢাকা ৯ নম্বর ওয়ার্ড এর কমিশনার নির্বাচিত হন ১৯৯৪ সালে। তার বড় ভাই শাহাদাত হোসেন বাদশা তার নামে (ডিপজল পরিবহন) বাস সার্ভিস চালু করেন।








Leave a reply